মঠবাড়িয়ার যে বিদ্যালয়ে আসলে আতঙ্কে থাকে ছাত্রছাত্রীরা প্রতিটি মুহূর্ত - মঠবািড়য়া সমাচার

শিরোনাম

Post Top Ad

Wednesday, 25 December 2019

মঠবাড়িয়ার যে বিদ্যালয়ে আসলে আতঙ্কে থাকে ছাত্রছাত্রীরা প্রতিটি মুহূর্ত


নিজস্বব প্রতিনিধি শাহজাহানঃ প্রতিকুল পরিবেশ শিশুর শিক্ষা জীবনকে অনিশ্চয়তার পথে ঠেলে দেয়।আনন্দ ও শিশু বান্ধব পরিবেশ ছাড়া তার সুষ্ঠু প্রতিভার বিকাশ অসম্ভব।পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় এমন একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সন্ধান পাওয়া গেছে যে বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়েই পাঠদান করে। অনেকেই ভয়ে আসতে চায় না বিদ্যালয়ে। যে ক’জন আসে তারা কখনো ছাদের দিকে আবার কখনো শিক্ষকের দিকে তাকায়।ছাদের পলেস্তার খসে আহত হওয়ার সংখ্যাও কম নয়।সরেজমিনে দেখা যায়,উপজেলার ৪৪ নং দক্ষিন দাউদখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি পরিত্যক্ত ভবনের মতই অবহেলায় পড়ে আছে। ছাত্রছাত্রী না থাকলে বোঝার উপায় নেই – এটি চলমান কোন বিদ্যালয়।নেই কোন স্যানিটেশন ব্যবস্হা। বিদ্যালয়টির পিছনের অধিকাংশ ও সামনের কিছু জানালা খুলে পড়েছে অনেক আগেই।পিলারগুলোর রড বের হয়ে গেছে। বিদ্যালয়টির ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে যে পাঠদান হয় না তা  ভিতরের জরাজীর্ণ পরিবেশ দেখেই বোঝা যায়।এ ব্যাপারে স্হানীয়রা জানান, ‘প্রতি বছর সয়েল টেস্ট হয়।টেস্ট সফল হয় কিন্তু ভবন হয় না।’দাউদখালী ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান সাইদুল হক রাজা মিয়া জানান, ‘বিভিন্ন মিটিং এ বিষয়টি উপস্হাপন করেছি। কোন ফল হয়নি। অভিভাবকরা ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে সন্তানদের এখন আর পাঠাতে চান না।’বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সামছুল আলম জানান, ‘ইতিপূর্বে স্হানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় একাধিক বার লেখালেখি হয়েছে। কোন ফল হয়নি।’বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি বদিউজ্জামান হেলাল জানান, ‘সংশ্লিষ্ট প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাসহ স্হানীয় সংসদ সদস্যকে বারবার ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে পাঠদানের বিষয়টি অবগত করা হয়েছে।ভবনটি শতভাগ ঝুঁকিপূর্ণ।দ্রুত নতুন ভবন নির্মান ও পুরানো ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষনা না করলে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।’

No comments:

Post a comment

Post Top Ad

Responsive Ads Here