ভান্ডারিয়ায় সর্দি জ্বর ও কাঁশিতে আক্রান্ত স্কুলছাত্রের মৃত্যু বাড়ি লকডাউন - মঠবািড়য়া সমাচার

শিরোনাম

Post Top Ad

Tuesday, 31 March 2020

ভান্ডারিয়ায় সর্দি জ্বর ও কাঁশিতে আক্রান্ত স্কুলছাত্রের মৃত্যু বাড়ি লকডাউন

ভান্ডারিয়া প্রতিনিধি : করোনা সন্দেহে পিরোজপুর জেলার ভান্ডারিয়া উপজেলার একটি বাড়ির আশাপাশ জুড়ে লকডাউন করা হয়েছে। উপজেলার পূর্ব ধাওয়া গ্রামের ৩ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা দিনমজুর আব্দুল আজিজ হাওলাদারের ছেলে স্কুলছাত্র সবুজ হাওলাদার (১৮) সর্দি-জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মঙ্গলবার দুপুরে নিজ বাড়িতে মারা যায়। এ ঘটনায় করোনা সন্দেহে প্রশাসন মৃত ওই ছাত্রের বাড়ি ও আশপাশ জুড়ে লকডাউন ঘোষণা করেছে। তবে সে করোনা আক্রান্ত কিনা তা নিশ্চিত হতে প্রশাসন নমুনা (ছোয়াব) সংগ্রহ করে ঢাকায় প্রেরণ করেছে বলে ভান্ডারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিচালক (টি এইচ) ডা. এইচ এম জহিরুল ইসলাম জানিয়েছেন। মৃত সবুজ হাওলাদার এ বছর দক্ষিণ ধাওয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। ডা. এইচ এম জহিরুল ইসলাম জানান, সবুজ গত চার দিন আগে সর্দি-জ্বর ও কাঁশিতে আক্রান্ত হয়। মঙ্গলবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বিষয়টি অবহিত করলে চিকিৎসকগণ হাসপাতালে নিয়ে আসতে পরামর্শ দেন কিন্তু তার পরিবার তাকে বাড়িতে রেখে স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা করে। মঙ্গলবার দুপুরে হঠাৎ সে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। তাকে বিশেষ  ব্যবস্থায় দাফন করা হয়েছে।মৃত্যুর খবর পেয়ে ভান্ডারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. নাজমুল আলম, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এইচ এম জহিরুল ইসলামসহ উপজেলা প্রশাসনের একটি দল তাৎক্ষনিকভাবে ঘটনাস্থলে ছুটে যান। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এইচ এম জহিরুল ইসলাম জানান, মৃত ব্যক্তির 
করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিল কিনা তার নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআর এ পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় ঝুঁকি এড়াতে মৃতের বাড়িসহ পার্শবর্তী বাড়িগুলো লকডাউন কর সকলকে কোয়ারেন্টিনে রাখার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ভান্ডারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম, ওই বাড়ির ও আশপাশ বসতি এলাকা লকডাউন করে সকলকে ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে থাকার ঘোষাণা দেন। এ ছাড়া তিনি এ ১৪ দিন ওই সব পরিবারের খাবার সরবরাহের দায়িত্ব নেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাজমুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মৃতের বাড়িসহ আশপাশে আজ থেকে ১৪ দিন লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। মৃতের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। সকলকে সতর্কতা মেনে চলার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।ভান্ডারিয়া থানার অফিসার ইনচাজ (ওসি) এসএম মাকসুদুর রহমান জানান, মৃতের বাড়িসহ আশপাশ থেকে যেন কেউ বের হতে বা কেউ যেন ঢুকতে না পারে সেজন্যে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

No comments:

Post a comment

Post Top Ad

Responsive Ads Here