মঠবাড়িয়ার মানবিক চিকিৎসক ফেরদৌস ইসলাম - মঠবািড়য়া সমাচার

শিরোনাম

Post Top Ad

Sunday, 31 May 2020

মঠবাড়িয়ার মানবিক চিকিৎসক ফেরদৌস ইসলাম

মঠবাড়িয়ার মানবিক চিকিৎসক ফেরদৌস ইসলাম
♦করোনা ভয়কে জয় করে ২০২০ সালে করোনা যুদ্ধে আমাদের যোদ্ধা হলো ডাক্তার শ্রেণি।

♦বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের প্রাক্কালে দক্ষিণের জেলা পিরোজপুরের অন্যতম বড় উপজেলা মঠবাড়িয়ায় ১১টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা জনগনের পাশে মানবিক চিকিৎসকদের মধ্যে একজন টিকিকাটা ইউনিয়নের কৃতিসন্তান করোনা যোদ্ধা ডা. ফেরদৌস ইসলাম প্রিন্স। তিনি উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আবাসিক মেডিকেল অফিসার হিসেবে কর্মরত।

♦ডা. ফেরদৌস ইসলাম সকাল থেকে রাত পর্যন্ত হাসপাতালের ডিউটির পরেও অক্লান্তভাবে রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। এমনকি গভীর রাতেও মোবাইল ফোনের মাধ্যমে রোগীদের সেবা দিয়ে তিনি ‘মানবিক ডাক্তার’ হিসেবে পরিচিতি পাচ্ছেন। তিনি ভালো মানের ডাক্তার হিসেবেও মঠবাড়িয়ার সর্বমহলের মানুষের কাছে বেশ সু-পরিচিত।

♦এদিকে মেডিকেল অফিসার ডা. ফেরদৌস প্রিন্স হাসপাতালে রোগীদের সেবা নয়, করোনা সংকটে কর্মহীন অসহায় মানুষদের পাশেও দাঁড়াতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একঝাঁক তরুণ মেডিকেল অফিসারদের সমন্বয় "ইয়ং ডক্টরস ফোরাম" সংগঠন গঠন করে নিজেকে স্বেচ্ছায় দান করছেন অকাতরে। তিনি ওই সংগঠনের সম্মানীত সাধারণ সম্পাদক দায়িত্বে রয়েছেন।

♦ইতোমধ্যে ঐ সংগঠনের ত্রাণ তহবিলে থেকে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অসহায়দে চিকিৎসা সেবা, খাদ্য সহায়তা ও নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান ছাড়াও পরিচিতজনদের মাধ্যমে লকডাউনে আটকে থাকা অসহায় মানুষজনের পরিবারের খোঁজ-খবর রাখছেন ডা. ফেরদৌস প্রিন্স।

♦ডা. ফেরদৌস প্রিন্স বলেন, ডাক্তারদের প্রধান এবং একমাত্র কাজ হচ্ছে রোগীদের সেবা দেয়া। অামি অামার দায়িত্ব থেকে চেষ্টা করছি মাত্র। তিনি মনে করেন অসহায় রোগীদের সেবার মাধ্যমে সৃষ্টিকর্তার নৈকট্য লাভ করা যায়। তিনি বলেন, মঠবাড়িয়াতে আল্লাহর অশেষ রহমতে এখন পর্যন্ত কোন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়নি।

♦এছাড়াও যদি কেউ করোনা উপসর্গ নিয়ে অসুস্থ বোধ করেন, তিনি যেন সরাসরি হাসপাতালে এসে বা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে স্বাস্থ্য সেবা নেন সেই অনুরোধও করে চিকিৎসক ডা. ফেরদৌস ইসলাম প্রিন্স।

লেখক: মীর তারেক, কুয়েত প্রবাসী।

No comments:

Post a comment

Post Top Ad

Responsive Ads Here