মঠবাড়িয়ায় যৌতুকের জন্য গায়ে আগুন দেয়া সেই গৃহবধূর মৃত্যু - মঠবািড়য়া সমাচার

শিরোনাম

Post Top Ad

Tuesday, 30 June 2020

মঠবাড়িয়ায় যৌতুকের জন্য গায়ে আগুন দেয়া সেই গৃহবধূর মৃত্যু

মঠবাড়িয়ায় যৌতুকের জন্য গায়ে আগুন দেয়া সেই গৃহবধূর মৃত্যু
স্টাফ রিপোর্টার : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় স্বামীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে রহিমা বেগম (৩০) নামের গৃহবধূ নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টার করা সেই গৃহবধূ চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। ওই গৃহবধূ আজ মঙ্গলবার (৩০ জুন) সকালে গোপালগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন বলে তার ভাই হাসান শেখ নিশ্চিত করেছেন। রহিমা বেগম মঠবাড়িয়া উপজেলার ঘোষের টিকিকাটা গ্রামের ইমাম হোসেনের স্ত্রী ও নাজিরপুর উপজেলার মালিখালী ইউনিয়নের দক্ষিন ঝনঝনিয়া গ্রামের আলমগীর হেসেনের মেয়ে। নিহতের ভাই মো. হাসান শেখ  জানান, গত ৬ বছর আগে মঠবাড়িয়া উপজেলার ঘোষের টিকিকাটা গ্রামের মৃত শামসুল আলমের ছেলে ইমাম হোসেনের সাথে তার বোন রহিমার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে ভগ্নিপতি (নিহতের স্বামী) ইমাম হোসেন প্রায়ই তাকে যৌতুকের জন্য মারাধর করে আসছে। এলাকাবাসী জানায়, গত ১১জুন বৃহস্পতিবার সকালে পারিবারিক বিষয় নিয়ে স্বামীর সাথে ঝগড়া করে রহিমা প্রথমে ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। পরে ওই দিন রাতে রহিমা আবার নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। এ সময় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে পরে ওই রাতেই তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। পরে খবর পেয়ে স্বজনরা এসে তাকে মঠবাড়িয়া থেকে গোপালগঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ (৩০ জুন) মঙ্গলবার সকালে তার মৃত্যু হয়। এদিকে ঘটনার পরের দিন (১২ জুন ২০২০) ওই গৃহবধূর ভাই মো. হাসান শেখ বাদী হয়ে ভগ্নিপতি (গৃহবধূর স্বামী) ইমাম হোসেনকে প্রধান আসামী করে ৫ জনের বিরুদ্ধে মঠবাড়িয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় ইমাম বর্তমানে জেল হাজতে রয়েছে। নাজিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মুনিরুল ইসলাম জানান, ওই গৃহবধূর মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য জেলা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

No comments:

Post a comment

Post Top Ad

Responsive Ads Here